1. info@dainikganokhabor.com : দৈনিক দৈনিক গণ খবর : দৈনিক দৈনিক গণ খবর
  2. info@www.dainikganokhabor.com : দৈনিক গণ খবর :
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
তানোর পৌর বাসিকে ঈদুল আযাহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রবিন সরকার বাঘায় আম বোঝায় ট্রাক নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পার্শ্ববর্তী দোকানে- আহত-২ লালপুরে মরহুম পিয়াস আলীর আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল বির্তকিত সাংবাদিক রফিকের রোষানলে সাংবাদিক কাজী শাহেদ,মিথ্যাচারের প্রতিবাদ নবনির্বাচিত ভাইস-চেয়ারম্যান পপি’র বিরুদ্ধে অপপ্রচার সংবাদ প্রকাশের জেরে সামাজিক মাধ্যমে হুমকি,থানায় জিডি ঝলমলিয়া বাজারে পশু কেনা- বেচায় অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগ মোহনপুরে পিজি সদস‍্যদের মাঝে পোল্ট্রি খাদ‍্য ও উপকরণ বিতরন বাঘায় আমোদপুর নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম ও সভাপতি আলী হোসেনের বিরুদ্ধে মানববন্ধন লালপুর থানার এএসআই ইউসুফ আলীর বিরুদ্ধে আইজিপি অফিসে অভিযোগ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র যখন রিকশা চালক (গর্বিত শিক্ষার্থী)

  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪
  • ৫৫ বার পড়া হয়েছে

 

শিক্ষা ডেস্কঃ “রাজশাহীতে প্রাইভেট টিউশনিতে পয়সা কম, তাই প্রতিমাসের শেষ সপ্তাহে ঢাকায় এসে রিকশা চালাই।” রিকশার প্যাডেল ঘোরাতে ঘোরাতে খুব সহজেই এ কথাগুলো বললেন মো. মনিরুজ্জামান।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে মাস্টার্সে অধ্যায়নরত এই শিক্ষার্থী প্রায় ১০ বছর ধরে এভাবেই নিজের ও ছোট দুই বোনের পড়াশেনার খরচ যোগাড় করছেন। গত মাসের শেষ সপ্তাহে মগবাজার থেকে পরিবাগ যাওয়ার পথে তিনি আরোহী প্রতিবেদককে জীবন যুদ্ধের এই গল্প শোনান।

মনির জানান, রাজশাহীতে নবম-দশম বা একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র- ছাত্রী প্রাইভেট পড়ালেও মাসে দুইশ-পাঁচশো টাকার বেশি পাওয়া যায় না। অথচ ঢাকায় প্রতিদিন রিকশা চালিয়ে তিনি প্রায় হাজার টাকা আয় করেন। মনির বলেন, ‘এক্ষেত্রে শারীরিক পরিশ্রমটা একটু বেশিই হয়। কিন্তু সৎ পথে থেকে কম সময়ে এত টাকা আয় করার অন্য কোনো উপায় আমি পাইনি।’ এরপরও মনিরের আক্ষেপ যে তিনি শুধু টাকার অভাবে বোনদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘অনার্স’ পড়াতে পারেননি। বাধ্য হয়ে এখন তারা বাড়ির পাশের কলেজে ‘ডিগ্রি’ পড়ছেন।

এসএসসি পাশ করার পরই মনির প্রতি মাসের শেষ সপ্তাহে ঢাকায় রিকশা চালানো শুরু করেন। সেই থেকে এখন পর্যন্ত তিনি শুধু মিরপুর এক নম্বরের তাইজুল মিয়ার গ্যারেজের রিকশাই চালান এবং ওই গ্যারেজেই থাকেন।
মনির বলেন, “এই কাজটি কখনোই আমার খারাপ লাগেনি। কাজ তো কাজই। আমি তো আর চুরি-ছিনতাই করছি না।”

কয়েক বছর আগে মাস তিনেকের জন্য চাকরিও করেছিলেন মনির। কিন্তু পরীক্ষার আগে ছুটি না পাওয়ায় তিনি সেটি ছেড়ে দেন। মনির আরো জানান, এ বছরের মাঝামাঝি সময়ে মাস্টার্স শেষ হওয়ার পর তিনি বিসিএস পরীক্ষা দেয়ার প্রস্তুতি নেবেন।

তুমি এই নষ্ট সমাজের একজন আদর্শ শিক্ষার্থী। জীবনে সফলতার চূড়ান্ত সীমা অতিক্রম করো এই কামনা করি।

সকল তথ্য পেতে দেখুন:-
www.eduicon.com
২০১৪ ইং

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
 গণখবর সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত 
প্রযুক্তি সহায়তায়: n̶a̶z̶m̶u̶l̶ ̶r̶o̶n̶i̶